প্রাকৃতিক উপায়ে গ্যাস্ট্রিক সমস্যার সমাধান

বর্তমান সময়ে গ্যাস্ট্রিকজনিত সমস্যা খুবই পরিচিত। যে কোন বয়সের মানুষ এই রোগটিতে  আক্রান্ত হয়ে যেতে পারে।গ্যাস্ট্রিকজনিত  সমস্যা বাড়তে দিলে তা আলসার বা গ্যাস্ট্রিকগ্রন্থি ক্যান্সারে রূপধারণ করতে পারে। এছাড়াও বুক পিঠে ব্যথা, শ্বাস প্রশ্বাসে বিঘ্নতা, হজমে সমস্যা ইত্যাদি কারণ হয়ে উঠতে পারে।
যেহেতু এ সমস্যা আমাদের মধ্যে অনেক তীব্র, চলুন দেখে নেওয়া যাক, কিভাবে খুবই দ্রুত গ্যাস সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়-
মেথিঃ
১ মুঠো পরিমান মেথি সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। সকালে ঘুম থেকে উঠার পর মেথি গুলো ছাঁকনির সাহায্যে ছেকে পানিটুকু খেয়ে নিন। ১ মাসের মধ্যে আপনার গ্যাস্ট্রিকজনিত সমস্যা হ্রাস পেতে শুরু করবে।
কালো জিড়াঃ
কালোজিড়ায় রয়েছে ভেষজ গুণ যা গ্যাস হ্রাসে  সহায়ক। সকালে ঘুম থেকে উঠার পর অথবা দিনের যে কোন সময়ে ২/৩ চিমটি কালি জিড়া খেয়ে নিন।
কাঁচা হলুদঃ
এক গ্লাস পরিমান পানিতে ১ ইঞ্চি পরিমান কাঁচা হলুদ নিয়ে নিন৷ কম করে হলেও ৫ মিনিট  চুলায় ফুটতে দিন। নামিয়ে নেওয়ার পর ঠান্ডা হওয়া পানি হলুদসহ খেয়ে ফেলুন।
মধুঃ
অন্যান্য সকল পদ্ধতি অবলম্বন করাটা কঠিন মনে হলে, রাতের বেলা ঘুমানোর আগে ১ চা চামচ মধু ১ গ্লাস পানিতে মিশিয়ে খেয়ে নিন। এতে গভীর রাতে ঘুমের মাঝে গ্যাসের সমস্যা থেকে মিলবে মুক্তি।
দইঃ
দইয়ে রয়েছে ল্যক্টোব্যাকিলাস, এসিডোফিলাস মতো নানা উপকারি ব্যক্টেরিয়ার যা দ্রুত খাবার হজমে সহায়তা করে। এতে করে গ্যাসের উদ্রেক কমে আসে।
দুধঃ
দ্রুত গ্যাস কমাতে ও পরবর্তীতে গ্যাস্টিকজনিত সমস্যা থেকে চিরন্তন মুক্তি পেতে পান করতে পারেন ঠান্ডা দুধ। প্রক্রিয়াটি খুবই সহজ ও উপকারী বটে!
এসকল উপায় অবলম্বন করা ছাড়াও নিয়মিত ঘুম, খাওয়া, রুটিন মেনে চলা, ব্যাম ও দুশ্চিন্তা পরিহার করলে গ্যাস্ট্রিকজনিত সমস্যা অনেকাংশে হ্রাস পাবে। নিয়মিত পানি ও ভিটামিন সি যুক্ত খাবার খাওয়া ও তামাক দ্রব্য সেবন বন্ধ করা অপরিহার্য।
ইয়ুথ ভিলেজ/বিশেষ প্রতিবেদক/সামিহা রাদিয়া হাসান